করুণাময়ী কালীমন্দির একঝলকে

দুশো ঊনষাট বছর আগে যে মন্দির প্রতিষ্ঠা করে কালীপুজোর সূচনা হয়েছিল, সেই মন্দিরের নামেই এখন ওই অঞ্চলের পরিচিতি— করুণাময়ী। টালিগঞ্জ করুণাময়ী। সেই মন্দিরের সর্বময় কর্তা, সুবর্ণ রায় চৌধুরীর পঁয়ত্রিশতম বংশধর অশোক রায় চৌধুরী। করুণাময়ী কালী মন্দিরের নানান দিক…

করুণাময়ী কালীবাড়ি, টালিগঞ্জ হল কলকাতার টালিগঞ্জ এলাকায় আদিগঙ্গার তীরে অবস্থিত একটি পুরনো কালীমন্দির। মন্দিরটি টালিগঞ্জের মহানায়ক উত্তমকুমার মেট্রো স্টেশনের কাছে অবস্থিত। মূল কালীমন্দিরের সঙ্গে বারোটি শিবমন্দির, একটি গণেশমন্দির ও একটি রামকৃষ্ণ মন্দির রয়েছে।

জনশ্রুতি, স্থানীয় সাবর্ণ রায়চৌধুরী পরিবারের জমিদার তথা কালীসাধক নন্দদুলাল রায়চৌধুরীর সাত বছর বয়সী মেয়ে করুণার মৃত্যুর পর তিনি “করুণাময়ী” নামে এই কালীমূর্তিটি প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। কালীমূর্তিটি পঞ্চমুন্ডির আসনের উপর প্রতিষ্ঠিত এবং সাত-বছর-বয়সী মেয়ের রূপে পূজিত হয়। জনশ্রুতি অনুযায়ী, কালীর স্বপ্নাদেশ পেয়ে নন্দদুলাল আদিগঙ্গার তীরে সাবর্ণ চৌধুরীদের ঘাটে গিয়ে একটি কালো পাথর পেয়েছিলেন। সেই পাথরেই মূর্তিটি তৈরি হয়। এই মূর্তির বৈশিষ্ট্য হল, কালী ও শিব একই পাথরে নির্মিত বলে উভয়েরই রং কালো। মূর্তিটি সোনার অলংকারে সজ্জিত থাকে।

তথ্য: উইকিপিডিয়া

দেশ ও এই সময়

24×7 NATIONAL NEWS PORTAL

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *