নিয়মমেনে ১৪ শাক, কিন্তু কী কী?

প্রণব দেবনাথ: করোনার বিশ্বাসের শাকেই চতুর্দশী আজ।
শাস্ত্র মতে চৌদ্দ শাকের নাম জানতে চাইলে গৃহকর্তারা অস্বস্তিতে পড়েন। সেকালের শাক আর মেলেগো। শ্রীচৈতন্যচরিতামৃত কৃষ্ণ সিঙ্গারে ভোগ আরতির অপূর্ব গান পিলু রাগে ঠুংরির সুরে বাঁধা। শাস্ত্রগ মশাই থেকে নবদ্বীপের ভট্টাচার্যের স্মৃতিতে রঘুনন্দনের প্রাচীন শ্লোকের সুর । শাস্ত্র,পুরা কথার চোদ্দশাক শুধু ভূ-ভারতে খুঁজে পাওয়ার জো নেই।
ওল , কেঁউ, বেতো, সরষে, কাল কাসুন্দি, নিম, জয়ন্তী,শালঞ্চী, হিঞ্চা,পটলপত্র, শুলফা, গুড়িচী, ভন্টাকী, শুষনী-রঘুনন্দনের এই ফর্দ একালে কোথাও মিলবে না অনেক সাত জন্মেও দেখেননি। তবুও কালীপুজোর আগে ভূত চতুর্দশী আসে ।চোদ্দ শাকের আকুতি ছড়ায় শহর-গ্রামের বাজারে।
বর্তমানে বাজারে লালশাক, পালং,কলমি, সরষে, মুলো, পুঁথি, পাট, ছোলা, হিঞ্চে ,নটে ,কুমড়ো, পটলপাতা, শুষনিদের রমরমা।রঘুনন্দনের গ্রন্থ বলছে চতুর্দশীতে সময়মতো এ শাক খেলে প্রেত লোকে যেতে হবে না ।আর পুরোহিতদের ব্যাখ্যা ১০০ ভাগ সাইন্টিফিক রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে। উল্টো রথে জগন্নাথ দেবের সন্ধ্যা আরতির আগে 56 ভোগে চৌদ্দ শাকের উপস্থিতি আছে।
তিথি ফেরে কার্তিকের চতুর্দশী অবশ্যই বার কালীপুজোর দুপুরেই পড়েছে করোনাকালে তাই দ্বন্দ্ব কালীপুজো উপোষ করবো না রোগ তাড়াতে শাক খাব।
বিশেষজ্ঞ ডাক্তাররাবলছেন শাকের ভেষজগুণ অবশ্যই থাকে তবে সেটা আয়ুর্বেদে পাথরের প্রমাণের অভাব তা স্পষ্ট। যাই হোক আম বাঙালিরা কিন্তু হ-য-ব-র-ল রীতিতে হিসেব মেলায়।

দেশ ও এই সময়

24×7 NATIONAL NEWS PORTAL

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *