“ই লাইব্রেরি” — সোশ্যাল মিডিয়াকে কাজে লাগিয়ে অভিনব পদ্ধতি শুরু অশোকনগরে

নিজস্ব সংবাদদাতা, অশোকনগর, উত্তর ২৪ পরগণা :

অশোকনগর কল্যাণগড়ের একটি ফেসবুক পেজ ‘আমার শহর অশোকনগর কল্যাণগড়’ করোনা আবহে লক ডাউন ক্ষতিগ্রস্থ ও আর্থিকভাবে পিছিয়ে পরা ছাত্র ছাত্রীদের কথা ভেবে শুরু করলো ‘ই লাইব্রেরি’। গত ১৫ দিন ধরে ক্যাম্পেন, সার্ভে ইত্যাদির মাধ্যমে তারা জানতে পারে অশোকনগর কল্যাণগড় এলাকায় প্রায় ২০০ এর বেশী ছাত্র ছাত্রীর পড়াশুনার ক্ষতি হচ্ছে অর্থাভাবে। লাইব্রেরি গুলো বন্ধ হয়ে পরে আছে। অন্যদিকে ছাত্র ছাত্রীদের মাধ্যমিক থেকে উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষাবর্ষ বদলে যাচ্ছে।
মোটা মোটা বইয়ের বোঝা কিছুটা যাতে কমানো যায় এমন ভাবনা নিয়েই তাদের ক্যাম্পেন শুরু হয় এবং গত ১৫ দিনে প্রায় ৫০০ র বেশী বই সংগ্রহ করে লক ডাউন ক্ষতিগ্রস্থ ও আর্থিকভাবে পিছিয়ে পরা ছাত্র ছাত্রীদের কথা ভেব।

৫ই সেপ্টেম্বর আনুষ্ঠানিকভাবে ই লাইব্রেরির সূচনা হয় অশোকনগর বিধানসভা এলাকার বাঁশপুল বিধান স্মৃতি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে। উদ্বোধনি অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বাঁশপুল গ্রাম পঞ্চায়েত প্রধান মাননীয়া সুনীতি সিং মুন্ডা মহাশয়া, অশোকনগর বিদ্যাসাগর বানিভবন হাই স্কুলের প্রধান শিক্ষক মাননীয় মনোজ ঘোষ মহাশয়। এছাড়াও সংগঠনের সদস্য এবং ছাত্র ছাত্রীরা।
ই লাইব্রেরির সূচনা করেন মাননীয় মনোজ ঘোষ মহাশয় পাশাপাশি স্থানীয় ৪০ জন ছাত্র ছাত্রীদের এই লাইব্রেরির পক্ষ থেকে দেওয়া হয় পাঠ্য বই সাজেশন বই এবং প্রয়োজনীয় পরিমানে খাতা। মনোজ বাবু তার বক্তব্যে সংগঠনকে সাধুবাদ দিয়ে এগিয়ে চলার কথা বলেন, পাশাপাশি ছাত্র ছাত্রীদের আস্বাস দেন সংগঠনের পক্ষ থেকে তিনিও পাশে থাকবেন। বাশপুল গ্রাম পঞ্চায়েত প্রধান মাননীয়া সুনীতি সিং মহাশয়া তার বক্তব্যে জানান তিনি যতদিন ঐ গ্রামের প্রধান হিসেবে থাকবেন ততদিন তিনি সংগঠনের পাশে এবং Little Hand ই লাইব্রেরির পাশে থাকবেন, গ্রামের শিক্ষার অগ্রগতির জন্য তিনিও সচেষ্ট হবেন । পশ্চিমবঙ্গ বিজ্ঞান মঞ্চের তরফে প্রদ্যুত বাবু জানান তিনি এই লাইব্রেরির পাশে থাকবেন এবং আগামিদিনে এই গ্রামের উন্নতিতে বিভিন্ন পদক্ষেপ নেবেন।

সংগঠনের অন্যতম সদস্য স্নেহাশিষ গাঙ্গুলি জানান, এই লাইব্রেরি মূলত আর্থিক ভাবে পিছিয়ে থাকা ছাত্র ছাত্রীদের জন্য। প্রাথমিক ভাবে ডিজিট্যাল মাধ্যমে তৈরি হলেও আমরা এর একটি ফিজিক্যাল শাখাও খুলবো। যে সকল ছাত্র ছাত্রীদের ডিজিট্যাল মাধ্যমে সচ্ছলতা নেই তাদের জন্য আমরা সার্ভে টিম তৈরি করেছি যারা বাড়ি বাড়ি গিয়ে খোঁজ নেবে এবং প্রয়জনীয় বই ও শিক্ষা সামগ্রী প্রদান করবেন । ফিজিক্যাল লাইব্রেরির জন্য যদি কোন সহৃদয় ব্যাক্তি এগিয়ে আসেন এবং একটি ঘর ব্যবহার করতে দেন তাহলে খুব তাড়াতাড়ি শুরু করা যায় এবং লাইব্রেরি চালাতে সকলের কাছে সাহায্যের আবেদনও করেন।

দেশ ও এই সময়

24×7 NATIONAL NEWS PORTAL

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *