“মা তাঁরাই বলেছিলেন গ্রামে আসবে বিদ্যুৎ, হবে রেলস্টেশন” বললেন মন্দিরের উপাসক

নিজস্ব সংবাদদাতা, দত্তপুকুর: উত্তর ২৪ পরগণা জেলার দত্তপুকুর থানার অন্তর্গত নাকসা গ্রাম। এখানেই বহু বছর আগে গড়ে উঠেছিল শ্মশান। তবে গত বেশ কয়েকবছর তা বন্ধ ছিল। সেখানেই গ্রামের লোকেদের সহযোগিতায় গড়ে উঠল এক বিশালাকার মন্দির। প্রায় ১.৫ কোটি টাকা ব্যায়ে প্রায় ৭ বছর ধরে তৈরী করা হয়েছে এই দেবীর সতীর মন্দির। যার শুভ উদ্বোধন হল সোমবার। খুলে দেওয়া হল নাকসা শ্মশানও। “সর্বমঙ্গলা মঙ্গলময়ী সতীমাতা তাঁরা মায়ের মন্দির” টি দ্বিতল। নীচের তলে গর্ভগৃহে রয়েছেন দেবী তাঁরা ও সতী দেবীর মূর্তি। উপরের তলে রয়েছেন কষ্টিপাথরের দেবাদিদেব। মন্দিরের প্রধান পুরোহিত তথা উপাসক স্বপন সাধু জানালেন, “বহু বছর আগে তিনি স্বপ্নাদেশ পান এই নাকসা শ্মশান পরিণত হবে মহাশ্মশানে। হবে বিশাল মন্দির, আসবে বিদ্যুৎ, হবে রেল স্টেশন চলবে ট্রেন।” গ্রামবাসীদের আক্ষেপ বিদ্যুৎ মন্দির হলেও আসেনি রেল। এখন কাছের রেলস্টেশন বলতে প্রায় ৮ কিমি দুরের বনগাঁ শাখা অন্য দিকে হাসনাবাদ শাঁখা। রেল তবে কি হবে না? স্বপন সাধু জানান, “ মা’ই জানেন”

তবে এর সাথে তিনি এও জানান, যে যেমন তিনি এই মায়ের কাছে কিছু চাননা তবে মমতাময়ী (মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়) মায়ের কাছে আবদার করছেন এই নাকসা শ্মশানে যেন বৈদ্যুতিক চুল্লির ব্যবস্থা করা হয়। যাতে মৃত্যুর পর জ্বলন্ত চিতায় প্রিয়জনের মৃতদেহের কষ্টকর রূপ যেন তার পরিবার পরিজনদের দেখতে না হয়।

তবে শ্মশান চালু হওয়ায় এলাকাবাসী অনেকেই ক্ষুব্ধ। তাদের দাবি, শ্মশান চালু হওয়ার ফলে এলাকায় প্রচুর দূষণ বাড়বে।

দেখুন কি বললেন পুরোহিত:

দেশ ও এই সময়

24×7 NATIONAL NEWS PORTAL

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *