শিবচতুর্দশী রাতে বুড়োনাথের বিয়ে ঘিরে মেলা

ভাস্কর মন্ডল ,বীরভূম : বীরভূমের জেলার মহম্মদবাজার ব্লকের শালের জঙ্গল ঘেরা গ্রাম। কোথাও কোথাও গাছ আগুন করে আছে রাঙা শিমূল, পলাশে। এমনই মায়াবী পরিবেশে রায়পুর গ্রামে শিব রাত্রি উপলক্ষে বাবা বুড়োনাথের বিয়ে ঘিরে আনন্দে মাতোয়ারা আশেপাশের পাশের ১০ টির বেশী গ্রাম। এই বুড়োনাথ শিবের বিয়ে ঘিরে বসে মেলা। স্থানীয়দের মতে একশো বছর আগে এই বিয়ে সূচনা হয়। কথিত আছে বিহারের মুঙ্গেরের বাসিন্দা সাধক শঙ্কর গোস্বামী পায়ে হেঁটে বীরভূমের ঐ ঘন জঙ্গলে তাজপুর মৌজায় এসে সাধনা শুরু করেন। ঐ এলাকা তখন ঘন জঙ্গলে ঢাকা। শঙ্কর বাবা তার সাধন প্রভাবে প্রতিষ্ঠা করেন শিব মূর্তি। কিছু দিনের মধ্যেই শঙ্কর বাবার নাম এলাকায় ছড়িয়ে পড়ে।জনশ্রুতি তিনিই শিব রাত্রি উপলক্ষে চতুর্দশী রাতে শিবের বিয়ের এই প্রথা সূচনা করেন গ্রামবাসী দের সঙ্গে নিয়ে। শুরু হয় মেলা। তখন গ্রামের লোকজনই সামান্য কয়েকটি দোকান দিত। রাতে বাঘ ভালুকের ভয়ে দোকানদারেরা দোকান গুটিয়ে শঙ্কর বাবার আশ্রমে আশ্রয় নিতো। ফাল্গুন মাসে চতুর্দশীর রাত শেষ হয়ে যখন অমাবস্যা পড়ছে, তখনই রায়পুরে বুড়োনাথের বিয়ের ক্ষণ। আজ রাত ৮ টায় এই আসর বসবে বলে জানা গিয়েছে। মন্দিরের পাশে ছাদনাতলা।ভক্তদের কাঁধে চেপে বুড়োনাথ শিব পার্বতীর প্রাচীন বিগ্রহটি আনা হয় মন্দির সংলগ্ন ছাতনা তলায়। তার আগে ছাতনা তলায় হাজির হয় আশেপাশের গ্রামের সন্মাননীয বরযাত্রীরা। যখন ছাতনায় দেবীকে আনা হয় তখন দেবীর মাথায় সুগন্ধি তেল, গলায় মালা, মাথায় মুকুট, পার্বতী দেবী তখন গ্রামের মেয়ে। ছাতনা তলায় আনার পর শুরু হয় সাত পাকে ঘোরা। প্রথা মেনে পুরোহিতের মন্ত্র উচ্চারণের সঙ্গে হয় বুড়ো নাথের মালা বদল। পাল্টা পার্বতী মালা বদল। আর নাপিত তখন পাশ থেকে ছড়া বলতে থাকে। যা শুনে বড় যাত্রী হেঁসে কুটোকুটি।

দেশ ও এই সময়

24×7 NATIONAL NEWS PORTAL

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *