“সায়েন্স বুঝি না, তবে পলিটিক্যাল সায়েন্সটা একটু আধটু বুঝি” – অমিত শাহকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

সবে মিটেছে বিধানসভার ভোট। ২০০ আসন জয়ের স্বপ্ন দেখতে গিয়ে মাত্র ৭৭ টি আসনেই থামতে হয়েছে রাজ্যের পদ্মশিবিরকে। ফলে স্বাভাবিক ভাবেই আপাতত রাজ্যের সাথে কেন্দ্রের রাজনৈতিক বিরোধ চরমে কিন্তু একই সাথে করোনার বিপর্যয় এবং আসন্ন ঘুর্ণিঝড় ‘ইয়াস’ এর মোকাবিলায় হাতে হাত ধরে লড়াই করতে প্রস্তুত যুযুধান দুই শিবির। ক্রমশ শক্তি বাড়িয়ে উপকূলের দিকে এগিয়ে আসছে ঘুর্ণিঝড় ‘ইয়াস’। বাংলা, ওড়িশা, অন্ধ্রপ্রদেশ এই তিন রাজ্যে তান্ডব চালাবে শক্তিশালী সাইক্লোন আর সেই কারণেই আজ তিন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদের নিয়ে ভার্চুয়াল বৈঠকে বসেছিলেন স্বরাস্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ।

বৈঠক শেষ করেই কেন্দ্রের ওপর ক্ষোভ উগড়ে দিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বাকি দুই রাজ্যকে ৬০০ কোটি টাকা সাহায্য করলেও বাংলাকে কেন ৪০০ কোটি টাকার সাহায্য করা হল তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন, ‘বাংলা, ওড়িশা এবং অন্ধ্রপ্রদেশকে নিয়ে আজ একটা বৈঠক করেছেন অমিত শাহ বাবু। সহযোগিতা করবেন বলেছেন। ঘোষণা করেছেন, ওড়িশা ৬০০ কোটির উপর টাকা পাবে। অন্ধ্রপ্রদেশও পাবে ৬০০ কোটির বেশি টাকা। বাংলাকে দেওয়া হবে ৪০০ কোটির সামান্য বেশি। আমি বলেছি, ওড়িশা, অন্ধ্রের থেকে বাংলা অনেক বড় রাজ্য। আমাদের জনঘনত্ব এবং জেলাও অনেক বেশি। তা সত্ত্বেও বার বার কেন বঞ্চিত আমরা?’

বাকি দুই রাজ্যের ৬০০ কোটি টাকা পাওয়ায় কোন অসুবিধা নেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের তবে বাংলায় জনঘনত্ব এবং ক্ষতির আশঙ্কা বেশি হওয়া সত্ত্বেও কেন বাংলাকে কম অর্থ সাহায্য করা হল তা কিছুতেই বুঝতে পারছেন না তিনি। ক্ষোভ উগড়ে তিনি বলেন, ‘আমপানের সময় বলেছিল টাকা দেবে। কেন্দ্রীয় দল এসে ঘুরেও গেল। কিন্তু শেষ পর্যন্ত কিছু হল না। রাজ্যের খাতে মজুত টাকা থেকেই ১০০০ কোটি ধরিয়ে দেওয়া হয়েছিল। অর্থাৎ মাছের তেলেই মাছ ভাজা হয়েছিল। বুলবুলের সময়ও টাকা পাইনি, আমপানের সময়ও নয়, কোভিডেও নয়। এখন আবার আর একটা ঝড় আসছে।
যদিও এই প্রশ্নের উত্তরে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বক্তব্য, “এর পিছনে সায়েন্স আছে।” এদিনের এই মন্তব্যকে কটাক্ষ করে তৃণমূল নেত্রী বলেন, “আমি একটু-আধটু পলিটিক্যাল সায়েন্স বুঝি, সায়েন্স টা ঠিক বুঝি না।” সাথে সাথেই এদিন ইয়াস সম্পর্কেও মানুষজনকে সচেতন করেন তিনি। তিনি বলেন, “অযথা আতঙ্কিত হবেন না। তবে সতর্ক থাকতে হবে। জানলা দিয়ে উঁকিঝুঁকি নয়। ঝড়ে টিন উড়ে আসতে পারে। আগের বার যেমন অভিযোগ সামনে এসেছিল, এ বার সিইএসসি আরও তৎপর। কেন্দ্রীয় বাহিনী, বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনী প্রস্তুত। আমরা তৈরি আছি।”

দেশ ও এই সময়

24×7 NATIONAL NEWS PORTAL

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *