এবার বিজেপিকে বিদায় জানালেন রাজ্য বিজেপির সংখ্যালঘু মোর্চার সহ সভাপতি

বিজেপি দল ছাড়ার হিড়িক। ভোট পর্ব মিটে যেতেই একের পর এক বিজেপি নেতা দল ছাড়ছেন। কেউ বা যোগ দিতে চাইছেন শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেসে। কেউ থাকতে চাইছেন অন্তরালে। এবার সেই তালিকায় নাম লেখালেন একদা তৃণমূল ছেড়ে আসা বিজেপির সংখ্যালঘু মোর্চার রাজ্য সহ-সভাপতি কাশেম আলী।

বিজেপি নেতা হিসেবে অমিত শাহের সাথে

বেশ কিছুদিন ধরেই কাশেমকে নিয়ে বিজেপিতে চরম গুঞ্জন ছড়িয়েছিল। কদিন ধরেই কানাঘুষো চলছিল যে, কাশেম আলি বিজেপি ছেড়ে তৃণমূলে যোগ দিতে পারেন। আর এবার সেই গুঞ্জন অনেকটাই সত্য প্রমাণিত হল। বিজেপি ছাড়লেন কাশেম আলি। তবে আগামী দিনে তিনি তৃণমূলে যোগ দেবেন কি না, সেটা অবশ্য এখনও জানা যায়নি।

একদা তৃণমূল কর্মী কাশেম


তবে তিনি যে শুধু বিজেপি দলটা ছাড়ার ঘোষণা করেছেন এমনটা নয়, তার পাশাপাশি তীব্র আক্রমণ শানান বিজেপির রাজ্য সভাপতি দীলিপ ঘোষ ও বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারীকেও। এক ভিডিও বার্তায় দেখা যাচ্ছে তিনি জানিয়েছেন, দীলিপ ঘোষ ও শুভেন্দু অধিকারীর নেতৃত্বাধীন বিজেপি বাংলার সর্বনাশ ডেকে আনবে। সেই সাথে বিজেপিকে রীতিমতো বাংলার ও বাঙালির শত্রু আখ্যা দিয়েছেন।

এছাড়াও নারদ কান্ডে তৃণমূলের তিন বিধায়ক-মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম, সুব্রত মুখোপাধ্যায় এবং মদন মিত্র সহ প্রাক্তন তৃণমূল নেতা শোভন চট্টোপাধ্যায়ের গ্রেফতারির বিরোধিতা করেছেন।

ভবিষ্যত খোলসা করলেন না কাশেম আলী

বিজেপিকে সংখ্যালঘু বিরোধী একটা ইমেজ হিসেবে সবসময়ই শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস উপস্থাপন করে। সেদিক থেকে কাশেম আলীর বিজেপির সঙ্গ ত্যাগ একটা বড়সড় ফাটল বলেই মনে করছে রাজনৈতিক মহল। কারণ কাশেম সংখ্যালঘুদের মধ্যে বিশেষ জনপ্রিয়, তাঁর ডাকে বহু সংখ্যালঘু ভোট একত্রিত করতে পেরেছিল বঙ্গ বিজেপি। উল্লেখ্য এর আগে কাশেম বিজেপির সংখ্যালঘু মোর্চার রাজ্য সম্পাদকের পদও সামলেছেন। স্বভাবতই কাশেম আলির দলত্যাগ নির্বাচনের পর বিজেপির কাছে একটা বিপর্যয়। তবে আগামী দিনে বড়ফুল ছেড়ে কাশেম কি এবার জোড়া ফুলে? এর উত্তর অবশ্য খোলসা করেননি তিনি।

কাশেম আলীর পদত্যাগ পত্র

দেশ ও এই সময়

24×7 NATIONAL NEWS PORTAL

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *