ভাঙছে তৃণমূল, ব্যারাকপুরে চিন্তা বাড়ছে অর্জুন বিরোধীদের

দেশ ও এই সময় নিউজ ডেস্ক, কলকাতা : মুর্শিদাবাদের গঙ্গা ভাঙ্গনের মতো ব্যারাকপুর জুড়ে তৃনমূলের ভাঙ্গন অব্যাহত ৷ এতদিন অন্যদল থেকে তৃনমূলে আসার স্রোত বইত ৷ এখন কাতারে-কাতারে নেতা কর্মী শাসকদল ছেড়ে প্রতিদিন ব্যারাকপুরে বিজেপিতে যোগদান করে চলেছে ৷ ক্রমশ তৃনমূল দলের নেতৃত্বের চোখে-মুখে হতাশার ছাপ ফুটে উঠেছে ৷ এই ব্যারাকপুরের নোয়াপাড়া কেন্দ্রে গত উপ-নির্বাচনে তৃনমূলের প্রতাপ মানুষ দেখেছে ৷ মাত্র কদিনে সেখানকার চিত্র উল্টো ৷ স্বয়ং নোয়াপাড়ার বিধায়ক সুনিল সিংয়ের পুত্র যুব নেতা আদিত্য সহ দু-হাজার নেতা-কর্মী বিজেপিতে গেলেন ৷ বিদ্যুৎ বেগে খবর ছড়াচ্ছে বিধায়ক সুনিল সিংও দল ছাড়ছেন ৷

হুগলী নদীর পাড় ঘেষে বীজপুর থেকে ব্যারাকপুর গুটি কয়েক কল-কারখানা এখন ধুকে-ধুকে চলছে৷ রুগ্ন দশা কাটাতে গত দশ বছরের সাংসদ দিনেশ ত্রিবেদীকে সংসদে একটা কথাও বলতে শোনা যায়নি বলে শ্রমিক মহল্লার দাবি৷ আবার অনেকে তার ‘সেরা সাংসদে’র তকমা নিয়ে হেসে-হেসে শোনান, বন্ধ মিলের চাবি দেখিয়ে সেই যে গেলেন আর এমুখো হলেন কোথায় ? ভোটের বাজারে কন্যাশ্রী,সবুজসাথী থেকে দু’টাকা কেজি দরে চাল দেওয়ার কথা বলেও ব্যারাকপুরের ভোটারদের মন ভোলাতে যে তৃনমূল নেতৃত্বকে হিমশিম খেতে হচ্ছে তা এলাকা-এলাকায় কান পাতলে শোনা যায়৷এই লোকসভারই এক পুরপ্রধানকে ৮৪ বছরের বৃদ্ধ ব্রাহ্মণ বলে দুয়ারে-দুয়ারে ভোট চাইতে হচ্ছে৷

এই শিল্পাঞ্চলের প্রবীণ এক তৃনমূল নেতা চায়ের ঠেকে শোনালেন,দুর্দিনের অর্জুনকে বধ করতে গিয়ে সব কেমন পাল্টে গেল ৷ তার আক্ষেপ, চোদ্দ আনা নেতারাই দলটাকে লাটে তুলছে ৷ তাহলে ব্যারাকপুর কেন্দ্রে রসায়ন শুধুই অর্জুনের দল ত্যাগ,না নেতৃত্বের প্রতি ক্ষোভ ? এই কেন্দ্র ঘুরলে বোঝা যাবে অর্জুন সিং তৃনমূলের স্তম্ভ ছিল৷ বাম আমলে তার সাহসী ভুমিকার কথা আদি তৃনমূল কর্মীরা আজও ভুলতে পারে না ৷ কেউ-কেউ শোনালেন,অর্জুনের বলে বলিয়ান অনেক নেতাই এখন কালীঘাটের সাহস নিয়ে চলছেন ৷ আর বহু বসে যাওয়া কর্মীরা তাই বুকে বল নিয়ে অর্জুন সিংয়ের পাশে ভিড়ছেন৷ এই তল্লাটে পুরসভা ও পঞ্চায়তের নেতৃত্বের প্রতি চরম ক্ষোভ উগরে দিচ্ছেন কর্মীরাই৷ জেঠিয়ার আদি তৃনমূল কর্মীদের কথায়,জমি কেনাবেচা থেকে পুকুর ভরাট সবেতেই মেম্বারদের টাকা দিতে হয় ৷ মানুষ অতিষ্ট তার ওপর পারিবারীক ঝামেলায় উপ-প্রধানের নাক গলানোর টুকরো-টুকরো চিত্র তুলে ধরলেন৷ পুরসভায় চাকরি পাওয়া নিয়ে দ্বন্দ্বের ছবিটা আরও প্রকট ৷ কাউন্সিলরদের পুত্র -কন্যা,আত্মীয় পরিজন আর লাল তৃনমূলীদের ভিড়ে এই লোকসভার কিছু পুরসভায় কর্মীদের বসার পর্যাপ্ত চেয়ার টুকু নেই৷ তুচ্ছতাচ্ছিল্য করা কর্মীদের ক্ষোভ জমতে-জমতে আজ শিলা বৃষ্টির আকার ধারন করেছে ৷ রাত বাড়লেই এলাকা-এলাকায় গুটি কয়েক হার্মাদদের দাপাদাপি মানুষ দেখেছে৷ যাকে তাকে বিরোধী তকমা দিয়ে পিটিয়েছে ৷এসব রসায়ন ব‍্যারাকপুরের তৃনমূল অন্দরে ঘুরপাক খাচ্ছে ৷আর তা থেকেই অর্জুন বিরোধী নেতৃত্ব আজ বড্ড বিপাকে ৷

দেশ ও এই সময়

24×7 NATIONAL NEWS PORTAL

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *