ফুরফুরা শরীফে তাড়া খেল তৃণমূল, ভাঁওতাবাজি আর নয়: আব্বাস সিদ্দিকী, সংখ্যালঘুদের উন্নতি হয়নি: কাশেম আলী

হুগলী, ২৬ শে মার্চ: ফুরফুরা শরিফের পীরজাদা আব্বাস সিদ্দিকী সাহেব অভিযোগ করেন, সাম্প্রদায়িকতার ভয় দেখিয়ে এলাকায় ভাঁওতাবাজি করে আর ভোট নেওয়া যাবেনা। স্বাধীনতার পরবর্তী বাংলার প্রথম গ্রামীণ হাসপাতালে দূরবস্থার কথা তুলে ধরেন এবং বলেন যে হাসপাতালের পর্যাপ্ত সুযোগ সুবিধা নেই কেনো?এছাড়া স্বাধীনতা সংগ্রামী দাদা হুজুরের নামে কেন বিশ্ববিদ্যালয় হল না? প্রস্তাবিত আই,টি,আই কলেজ কেন এলাকার বিধায়ক স্নেহাশিস চক্রবর্তী জাঙ্গীপাড়ায় স্থানান্তরিত করলেন তার জবাব চাই?

তাঁর আরও অভিযোগ, বিজেপি ও সাম্প্রদায়িকতার ভয় দেখিয়ে সংখ্যালঘুদের ভোট লুট করা যাবেনা। এছাড়া তিনি বলেন যে আমাদের ফুরফুরা উন্নয়ন পর্ষদ একটি কাঠের পুতুলে পরিণত হয়েছে,ঐতিহাসিক ইসালে সওয়াবে কেন পর্যাপ্ত সুযোগ সুবিধা থাকবেনা। আমরা চাই এলাকার সার্বিক উন্নয়ন। তিনি বলেন, ভারতের অন্যতম তীর্থভূমি ফুরফুরা শরীফ আর এই ফুরফুরা শরীফকে কেন্দ্র করে যে ভাবে কল্যাণ ব্যার্নাজী ও স্নেহাশিস চক্রবর্তী নোংরা রাজনীতি করছেন। আমাদের দাবি যদি না পূরণ হয়, আগামীদিনে বৃহত্তর আন্দোলন শুরু হবে। মঙ্গলবার ফুরফুরা শরিফে নির্বাচনী প্রচারে যান এই কেন্দ্রের দুবারের সাংসদ। সেখানে পৌঁছনো মাত্র বিক্ষোভের মুখে পড়েন কল্যাণবাবু। তাঁকে দেখে ফেটে পড়েন সংখ্যালঘু মানুষজন। এমনকি কালো পতাকাও দেখানো হয়। অবস্থা বেগতিক দেখে পূর্ব নির্ধারিত পথ পরিবর্তন করে মুন্ডলিকা চলে যান। এরপরেই আরও ক্ষোভ বেড়ে যায় সেখানে। পদ অবরোধ শুরু করেন উত্তেজিত জনতা।

এই ঘটনায় কাশেম আলী জানান, দীর্ঘদিন ধরে সংখ্যালঘুরা ভোটের রাজনীতির শিকার। সংখ্যালঘুদের নিয়ে শুধু রাজনীতিই হয়েছে। তাদের আদপে কোনোও উন্নতি ঘটেনি। তাই তৃণমূল কংগ্রেসকে সংখ্যালঘুদের নিয়ে রাজনীতি করা বন্ধ করতে হবে। আজ যে ঘটনা ঘটেছে তা সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মানুষেরা সঠিক কাজই করেছে।

দেশ ও এই সময়

24×7 NATIONAL NEWS PORTAL

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *