লিচুর চাহিদা বাজারে ব্যাপক হারে থাকায় লাভের আশা দেখছেন মালদার চাষিরা

মালদা : মালদায় এবার লিচুর ফলন ব্যাপক হয়েছে । বাজারে ঢালাও বিকোচ্ছে মালদার লিচু । আবহাওয়া অনুকূল থাকার কারণে এবারে লিচুর ফলন হয়েছে মালদায় বলে জানিয়েছে উদ্যানপালন দপ্তর । আর লিচুর চাহিদা বাজারে ব্যাপক হারে থাকায় লাভের আশা দেখছেন চাষিরা।

মালদা জেলার বিভিন্ন ফলের আড়ত থেকে বাজারগুলিতে ছেয়ে গিয়েছে লিচুর বিক্রি। পাইকার থেকে খুচরো ফল বিক্রেতারা বাজারে ঢালাওভাবে বিক্রি করছে লিচু। চাহিদা যেমন রয়েছে সেই সঙ্গে লিচুর স্বাদ ও গুণগত মান এবারও ভালো হয়েছে বলে জানিয়েছে উদ্যান পালন দফতর । এতে করে এবারে লিচু চাষিদের মুখে হাসি ফুটেছে।

উদ্যানপালন দপ্তরের মালদার উপ-অধিকর্তা রাহুল চক্রবর্তী জানিয়েছেন, এবছর জেলায় প্রায় ১২ হাজার মেট্রিকটন লিচু উৎপাদন হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে । সিংহভাগ গাছ থেকে লিচু পাড়ার কাজ সম্পন্ন হয়েছে। এবং বাজারেও চলে এসেছে। কিছু কিছু বাগানে এখনো লিচু রয়েছে । তবে গত বছর জেলায় ৮ হাজার মেট্রিক টন লিচু উৎপাদন হয়েছিল। অনুকূল আবহাওয়া থাকার কারণে লিচুর ফলন ভালো হয়েছে। তবে জৈব পদ্ধতিতে চাষিরা জাতের লিচু চাষে আগ্রহী হন সেই দিকেও বিশেষ জোর দেওয়া হয়েছে।

উদ্যান পালন দফতর জানিয়েছে, মালদা জেলায় প্রায় ১২৫০ হেক্টর জমিতে লিচু চাষ হয়ে থাকে। আম চাষের পরই মালদার দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে লিচু চাষ । কালিয়াচক ১,২ এবং ৩ ব্লকে মূলত বেশি লিচু চাষ হয়ে থাকে। এছাড়াও ইংরেজবাজার , মানিকচক ব্লকেও হয় লিচু চাষ হয়। এইসব ব্লকে লিচু চাষের জন্য উর্বর জমি রয়েছে । লিচুর ফলন ভালো হওয়ায় চাষিরা এই চাষে বেশি করে আগ্রহ দেখাতে শুরু করেছেন।

মালদা শহরের রথবাড়ি ফলের বাজারে বিক্রেতা তপন দাস , শিবু দাস বলেন , এবছর ব্যাপক লিচুর ফলন হয়েছে । ৬০ থেকে ৬৫ টাকা কিলো দরে লিচু বাজারে বিক্রি হচ্ছে। প্রতিদিনই আমরা কয়েক মন লিচু বিক্রি করছি । মালদার বাইরে থেকে বহু মানুষ লিচু কিনে নিয়ে যাচ্ছেন। মালদার লিচু এবারে স্বাদে ও গুণগতমান বেশ ভালো হয়েছে। তাই আমাদের আশা এবারের গরমের মরশুমে লিচুর ব্যবসায় ভালো লাভ হবে।

কালিয়াচক১ ব্লকের জালুয়াবাধাল গ্রামের লিচু চাষি আনোয়ারুল হক, সাজিদ শেখ , আব্বাস শেখ বলেন, কয়েক বছর আগে লিচু চাষ করতে গিয়ে যে ধরনের রোগ পোকার আক্রমণে জেরবার হতে হয়েছিল। আমাদের এবারে সেই সমস্যাটা হয় নি । গাছে লিচুর ফলনের প্রথম থেকে অনকূল আবহাওয়া পেয়েছি । তুলনামূলকভাবে শিলাবৃষ্টি, ঝড় কম হয়েছে। তাই লিচুর ফলন ভালোই হয়েছে। এবছর উৎপাদিত লিচু বিক্রি করে আর্থিক লাভ অনেকটাই হবে এমনটাই আশা করছি।

উদ্যানপালন দপ্তরের মালদার উপ- অধিকর্তা রাহুল চক্রবর্তী জানিয়েছেন, রাজ্য সরকারের সংশ্লিষ্ট দপ্তরে পরামর্শ এবং সচেতনতামূলক শিবিরের মাধ্যমে লিচুর ফলন ভালো হয়েছে। এই চাষের ক্ষেত্রে নতুন করে জমির পরিমাণ বাড়ানো এবং চাষীদের আগ্রহ বাড়াতে বিভিন্নভাবে সহযোগিতা করা হচ্ছে।

ছবি ——- মালদা শহরের বিভিন্ন বাজারে দেদার বিকোচ্ছে লিচু।

দেশ ও এই সময়

24×7 NATIONAL NEWS PORTAL

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *