পায়ে হেঁটে প্রচার বসিরহাট কেন্দ্রে বিজেপি প্রার্থী সায়ন্তন বসুর

জয়ন্ত কর্মকার, বারাসাত : সন্দেশখালিতে ১৩ কিলোমিটার পায়ে হেঁটে প্রচার করলেন বিজেপির প্রার্থী সায়ন্তন বসু৷এই বঙ্গে লোকসভা ভোটে এতখানি পথ পায়ে হেঁটে কেউ কোনদিন ভোটের প্রচার করেছে,এমন খবর কারোও জানা নেই৷ তবে এই পথ জেদ ধরে হাটতে বাধ্য হয়েছেন তিনি৷বিজেপির সায়ন্তন বসু বলেন,সন্দেশখালি বিধানসভা পুরোটাই তৃনমূলের সন্ত্রাষ এলাকা বলে পরিচিত৷সব সময় বিরোধী দলের কর্মীদের ঠেঁঙিয়ে পিটিয়ে জব্দ করে রাখে৷প্রাসাশন বলে কোনো জিনিস নেই৷আইনশৃঙ্খলা পুরোপুরি ভেঁঙে পড়ার মত অবস্থা৷ এমন অবস্থার মধ্যেদিয়ে ভোটের প্রচারে নামি আমি।কলকাতা থেকে ধামাখালি পৌঁছে,সেখান থেকে জেলিয়াখালি বাজার যাওয়ার জন্য নদী পার হয়ে তুষখালি ওঠেন৷ওখানে দলিয় কর্মীরা ২০টি ইঞ্জিন ভ্যান আগেই ভাড়া করে রাখে৷কিন্তু তৃনমূলের গুন্ডারা সেই ভ্যানচালকে হুমকি দিয়ে ভাগিয়ে দেয়৷তাইঅগত্যা দলীয় কর্মীদের সঙ্গে নিয়ে পায়ে হেঁটে জেলিয়াখালি বাজারে পৌঁছাই।

রাস্তার দুুধারে সাধারন মানুষ তাকে দেখার জন্য ভিড় করেন৷সবাই অবাক হয়ে যান চৈত্রমাসের এই প্রোখর রৌদ্রে পায়ে হেঁটে এতো খানি পথ প্রচার করা বেশ কঠীন৷তৃনমূলের গুন্ডা ও নেতারা ভেবেছিলেন ভ্যান না পেয়ে তিনি ফিরে যাবেন৷তারাও বেশ অস্বস্তিতে পড়ে যায়৷বাড়তি প্রচার পেয়ে যান সায়ন্তন বসুু ।এখন সবার মুখে মুখে পায়ে হাঁটার গল্প৷

২ঘন্টা হেঁটে জেলেখালি নদী পার হয়ে সুখদোয়ানি বাজার হয়ে ছোট গাড়ি১০৭ করে দাউদপুর পৌঁছান৷সেখানে কর্মী সম্মলনে যোগদেন৷কর্মী সম্মেলন শেষ করে দূর্গামন্ড মথুরাবাজার বড়তুষখালি ঘাট হয়ে সন্দেশখালি পৌঁছান৷

সন্দেশখালিতে দলীয় কর্মীদের প্রবল উৎসাহের মধ্যে দিয়ে দলীয় প্রচার সারেন৷ভগবতি বালিকা বিদ্যালয়ে কর্মী সম্মেলনে যোগদেন৷সন্ধ্যা ৬টার পর সন্দেখালি ছাড়েন৷

দেশ ও এই সময়

24×7 NATIONAL NEWS PORTAL

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *