চোপড়ার পুলিশ কনস্টেবল খুনে ধৃত দুই

ভাস্কর রায় , উত্তর দিনাজপুর : ইসলামপুর ও চোপড়া থানার পুলিশ যৌথভাবে অভিযান চালিয়ে পুলিশ খুনের ঘটনায় অভিযুক্ত শ্রীবাস মন্ডল ও সাধন মন্ডলকে গ্রেপ্তার করে। ধৃতদের আগামীকাল ইসলামপুর আদালতে তোলা হবে। ধৃত দুই দুস্কৃতী খুনের ঘটনা স্বীকার করেছে বলে জানিয়েছেন জেলা পুলিশ সুপার সুমিত কুমার। প্রাথমিক তদন্তে জানা গিয়েছে বালির গাড়ি থেকে টাকা তোলার কাজে পুলিশের বাধা আটকাতে এই কাজ করেছে তারা। পুলিশ সুপার এও জানিয়েছেন, পুলিশ ও এলাকার মানুষকে চমকানোই ছিল দুস্কৃতীদের মূল উদ্দেশ্য। ধৃতদের সিআইডি’র হাতে তুলে দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন পুলিশ সুপার।

উল্লেখ্য চলতি মাসের ৮ তারীখে রাতে পেট্রোল ডিউটি চলাকালীন চোপড়া থানার কালাগছ এলাকায় দুস্কৃতীরা গুলি করে খুন করেছিল চোপড়া থানার পুলিশ কনস্টেবল সাব্বির আলমকে। পুলিশকর্মীর দুস্কৃতীদের হাতে খুনের ঘটনায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়েছিল। সেই খুনের ঘটনায় আজ শনিবার ইসলামপুর ও চোপড়া থেকে দুই দুস্কৃতী শ্রীবাস মন্ডল ও সাধন মন্ডলকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। উত্তর দিনাজপুর জেলা পুলিশ সুপার সুমিত কুমার রায়গঞ্জ কর্নজোড়ায় তার অফিসে এক সাংবাদিক সম্মেলনে জানিয়েছেন, পুলিশ কনস্টেবল সাব্বির আলম খুনের ঘটনায় দুজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। ধৃত দুস্কৃতী শ্রীবাস মন্ডলের বাড়ি চোপড়া থানার ভোজ পুরানীগছ গ্রামে এবং অপর ধৃত দুস্কৃতী সাধন মন্ডলের বাড়ি চোপড়া থানার ভেরবাড়ি গ্রামে। তারা দুজনেই স্থানীয় বাসিন্দা। পুলিশ সুপার সুমিত কুমার বলেন, ধৃতরা ৩১ নম্বর জাতীয় সড়কে চলাচলকারী বালির লড়ি থেকে তোলা আদায় করত। এলাকার মানুষ ও পুলিশ যাতে তাদের কাজে বাধা না হয়ে দাঁড়ায় সেকারনেই এই ঘটনা ঘটিয়েছে তারা। সেদিন রাতে ধৃত দুই দুস্কৃতী এক বিয়ে বাড়ি থেকে মদ্যপ অবস্থায় ফিরছিল। পুলিশকে চমকানোর উদ্দেশ্যেই এই কাজ করেছে পুলিশের প্রাথমিক অনুমান। এদের সাথে অন্য কোনও গ্যাঙ যুক্ত আছে কিনা তার তদন্ত শুরু করা হয়েছে। ধৃতদের ১৪ দিনের জন্য পুলিশি হেফাজতের আবেদন করে আগামীকাল ইসলামপুর মহকুমা আদালতে পাঠানো হবে বলে জানান জেলা পুলিশ সুপার সুমিত কুমার।

দেখুন নিচের লিংকে ক্লিক করে

দেশ ও এই সময়

24×7 NATIONAL NEWS PORTAL

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *